কাতারে আজ থেকে বন্ধ হচ্ছে ‘কাফালা’ পদ্ধতি ও সংস্কার করা হয়েছে শ্রম আইন

144

এখন থেকে কাতারের সব শ্রমিক নিয়োগ হবে চুক্তিভিত্তিক। সেই সঙ্গে বর্তমানে কাতারে অবস্থান করা সব শ্রমিকের চুক্তি নবায়নের বিষয়ে আইনও করা হয়েছে।

‘কাফালা’ হলো এমন একটি পদ্ধতি যেখানে সব বিদেশি শ্রমিকের নিয়ন্ত্রক তার ‘কাফিল’ বা মালিক। শ্রমিকদের বেতন-ভাতা ঠিক না থাকলেও চাকরি ছাড়ার কোনো সুযোগ নেই। চাকরি বদলানোর সুযোগও পায় না শ্রমিকরা। আর চাকরি ছেড়ে দিলে আরোপ করা হয় দু’বছরের নিষেধাজ্ঞা।

এ পদ্ধতি নিয়ে বহুদিন ধরেই চলছিল সমালোচনা। অবশেষে তা বাতিল করলো কাতার সরকার। পাশাপাশি সংস্কার করা হয়েছে শ্রম আইন। তাই আজ থেকে শ্রমিকরা মুক্তি পাচ্ছে তাদের কাফিলের কাছ থেকে।

নতুন আইনানুসারে, শ্রমিকদের দেশে ফিরতে চাইলে কারো অনুমতি নিতে হবে না। চাকরি বদলের সুযোগও থাকছে। বর্তমান কাফিলের অনুমতি নিয়ে যেকোনো শ্রমিক অন্য কাফিলে চাকরি নিতে পারবেন। এছাড়া চুক্তি শেষ হবার আগেই ছেড়ে দিতে চাইলে, নিয়োগকারী এবং সরকারি অনুমোদন সাপেক্ষে তা করতে পারবেন বিদেশি শ্রমিকরা।

তবে নতুন এ আইনের অপব্যবহার হতে পারে বলেও ধারণা করছে অনেক শ্রমিক সংগঠন। এ আইনের ফলে শ্রমিক ছাটাইয়ের ঘটনা বেড়ে যেতে পারে। কাতারে এখন প্রচুর অবকাঠামো তৈরি হচ্ছে। যেখানে কাজ করছে বাংলাদেশ, পাকিস্তান, নেপাল ও ভারতের কয়েক লাখ শ্রমিক। চলতি বছরেই কাতারে পাড়ি জমানো শ্রমিকের সংখ্যা এক লাখেরও বেশি।

LEAVE A REPLY