মালয়েশিয়া আ. লীগের জেল হত্যা দিবস পালন

175

বাংলাদেশের ইতিহাসে কলংকময় একদিন ঐতিহাসিক জেল হত্যা দিবস পালন করেছে মালয়েশিয়া আওয়ামীলীগ ও এর সহযোগী সংগঠন। শনিবার রাজধানী কুয়ালালামপুরের সলিল হোটেলে শোকাবহ পরিবেশে দিবসটি পালন করে দলটির নেতাকর্মীরা।

এমদাদুল হক সবুজ মামার কোরআন তিলাওয়াত ও দোয়ার মাধ্যমে শুরু হওয়া অনুষ্ঠানে তিন নভেম্বরসহ অতিতে দেশের জন্য প্রাণ দিয়েছেন এমন সকল শহীদদের জন্য এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

শাহীন সরদার ও হুমায়ন কবিরের যৌথ সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, মালয়েশিয়া আওয়ামীলীগের নবগঠিত প্রস্তাবিত কমিটির সভাপতি মকবুল হোসেন মুকুল। প্রধান অতিথি বীর মুক্তিযোদ্ধা শওকত হোসেন পান্না ও প্রধান বক্তা প্রস্তাবিত কমিটির সাধারণ সম্পাদক ওহিদুর রহমান ছাড়াও এ সময় বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কামারুজ্জামান কামাল, হাজী জাকারিয়া, রাশেদ বাদল, মাহতাব খন্দকার, আব্দুল করিম, কাইয়ুম সরকার, হাবিবুর রহমান, মনির হোসেন।

বরিশালের কৃতি সন্তান মালয়েশিয়া আওয়ামীলীগের প্রস্তাবিত কমিটির সহ-সভাপতি কামরুজ্জামান কামাল তার বক্তব্যে বলেন, স্বাধীনতা বিরোধীরাই চার নেতাকে সেদিন হত্যা করেছিল। এ হত্যাকান্ড শুধু স্বাধীনতার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র নয় বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র।

প্রস্তাবিত কমিটির সাধারণ সম্পাদক ওহিদুর রহমান ওহিদ তার বক্তব্যে বলেন, দেশ স্বাধীনের পরও ষড়যন্ত্রকারীরা কতটা সক্রিয় ছিলো বঙ্গবন্ধুর পর পঁচাত্তরে এ হত্যাকাণ্ড সেটিই প্রমাণ করে। জাতির শ্রেষ্ঠ এ সন্তানদের শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ রাখবে বাংলাদেশিরা বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

সভাপতির বক্তব্যে মকবুল হোসেন মুকুল মালয়েশিয়া আওয়ামীলীগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, অতিতের সকল ভেদাভেদ ভুলে আজ আমরা এক হয়েছি। এখন সময় সামনে এগোনোর। সময় হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে কাজ করে যাওয়ার।

এসময় আরো বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবকলীগের সদস্য সুখন্ড শেখর, মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগের মনিরুজ্জামান মনির, শফিকুর রহমান চৌধুরী, শাখাওয়াত হক জোসেফ, মাহবুবুর রহমান, সাইফুল ইসলাম সিরাজ, রুহুল আমিন, আব্দুর বাতেন, ফারজানা সুলতানা, হাজী মতিন সরকার, ওমর আলি ভূইয়া, মাসুম বেপারি।

এসময় মালয়েশিয়ার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা আওয়ামীলীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের শতাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

LEAVE A REPLY