শাহানা হতে যাচ্ছেন নিউ ইয়র্ক সিটির কাউন্সিলে প্রথম বাংলাদেশী আইনপ্রণেতা

54
ছবি: ২২ জুন ভোটের রাতে, প্রাথমিক ফলে বিজয়ী শাহানা হানিফের সাথে "সন্দ্বীপ" সম্পাদক সোহেল মাহমুদ।

ইতিহাসে প্রথম বাংলাদেশী নারী রাজনীতিক, যিনি আমেরিকার কোন নির্বাচনে জনপ্রতিনিধি হতে যাচ্ছেন। ২ জুলাই রাতে বোর্ড অব ইলেকশন শাহানাকে নিউ ইয়র্ক সিটি কাউন্সিলের ডিস্ট্রিক্ট থার্টিনাইনে ডেমোক্রেট প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত ঘোষণা করেছে। চুড়ান্ত গণনা শেষে তিনি পেয়েছেন ৫৭ শতাংশ ভোট। এর আগে, ২২ জুন ভোটে এগিয়ে ছিলেন শাহানা। এবারই প্রথম চালু করা র‍্যাঙ্কচয়েস ভোটপদ্ধতির কারণে ভোট গণনায় দেরি হয়।


ডিস্ট্রিক্ট থার্টিনাইনে এবার রিপাবলিকান কোন প্রার্থী নেই। ডেমোক্রেট থেকে আর কেউ প্রার্থী হতে পারবেন না। স্বতন্ত্র প্রার্থীর বিজয়ের ইতিহাস নেই। অন্যদল থেকে প্রার্থী হলে ডেমোক্রেটঅধ্যুষিত এই ডিস্ট্রিক্টে জেতার সম্ভাবনা নেই। সেই হিসেব নিকেশে শাহানাই এই ডিস্ট্রিক্টের পরবর্তী কাউন্সিলমেম্বার।

নিউ ইয়র্ক সিটির ভোটাররা এবারই প্রথম দলীয় প্রাইমারিতে একপদে ৫ জন প্রার্থীকে ভোট দেয়ার সুযোগ পেয়েছেন। পছন্দের প্রার্থীদের ১ থেকে ৫ নম্বর পছন্দের ঘরে রাখার ব্যবস্থা ছিলো এ নির্বাচনে। শাহানা এই পদ্ধতির ভোটে প্রথমে ১০ হাজারের বেশি এবং চুড়ান্ত পর্যায়ে প্রায় ১৫ হাজার ভোট পেয়েছেন।


শাহানা হতে যাচ্ছেন নিউ ইয়র্ক সিটির কাউন্সিলে প্রথম বাংলাদেশী আইনপ্রণেতা। কাউন্সিল মেম্বার। প্রথম বাংলাদেশী নারী। এই ডিস্ট্রিক্টে তিনি প্রথম নারী কাউন্সিলমেম্বার।
শাহানা বাংলাদেশী পরিচয়কে সম্মানিত করেছেন। তার প্রতি শুভ কামনা।

LEAVE A REPLY