শুরু হচ্ছে কুয়াকাটা মেগা বিচ কার্নিভ্যাল

147

বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের অবস্থিত কুয়াকাটা একটি সমুদ্রসৈকত ও পর্যটনকেন্দ্র। পর্যটকদের কাছে কুয়াকাটা ‘সাগরকন্যা’ হিসেবে পরিচিত।

১৮ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যর সৈকতবিশিষ্ট কুয়াকাটা বাংলাদেশের অন্যতম নৈসর্গিক সমুদ্রসৈকত। এটি বাংলাদেশের একমাত্র সৈকত যেখান থেকে সূর্যোদয় এবং সূর্যাস্ত দুটোই দেখা যায়। পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া উপজেলার মহিপুর থানার লতাচাপলী ইউনিয়নে কুয়াকাটা অবস্থিত। ঢাকা থেকে সড়কপথে এর দূরত্ব ৩৮০ কিলোমিটার।

আগামীকাল থেকে এই সাগরকন্যা কুয়াকাটায় শুরু হচ্ছে ‘কুয়াকাটা মেগা বিচ কার্নিভ্যাল ২০১৭’। আর এ উপলক্ষে ইতিমধ্যে সাগরকন্যা সেজে উঠেছে বর্ণিল সাজে। নানা রংয়ের ব্যানার, ফেস্টুন, মেগা ব্যানার আর আলোকসজ্জায় সজ্জিত হয়েছে এই নয়নাভিরাম সমুদ্রসৈকত।

বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড এর উদ্যোগে এই বিশাল ও বর্ণাঢ্য আয়োজন শুরু হবে আগামীকাল ১৪ জানুয়ারি। শেষ হবে ১৬ জানুয়ারি রাতে। বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড এর সঙ্গে এই বর্ণিল কর্মযজ্ঞে সমন্বয় সাধন করবে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট কম্পানি অরেঞ্জ ৩৬০ লিমিটেড। এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য দিয়ে কালের কণ্ঠকে সহযোগিতা করেছেন অরেঞ্জ ৩৬০ লিমিটেড এর নির্বাহী পরিচালক জনাব সাব্বির হোসেন।

অনুষ্ঠানটির ব্যাপ্তী, সূচি ও অন্যান্য বিষয় নিয়ে কথা হয় সাব্বির এর সঙ্গে, তিনি জানান, ”এটি অনেক বড় একটি পরিকল্পনা। ভ্রমণপ্রিয় মানুষদের কথা মাথায় রেখে এ ধরনের আয়োজন করেছে বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড। অরেঞ্জ ৩৬০ লিমিটেড এই কার্নিভ্যালের মূল সরবরাহকারী। গত বছরের থার্টি ফাস্ট রাতে কক্সবাজার সমুদ্রসৈকতে এমনই একটি আয়োজন দেখেছিল সবাই। মানুষের ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনা লক্ষ করে এবার আরও বড় পরিসরে এর আয়োজনের চিন্তা করা হয়। আর সেই ভাবনা থেকেই আগামীকাল ১৪ জানুয়ারি থেকে ১৬ জানুয়ারি পর্যন্ত এই ‘কুয়াকাটা মেগা বিচ কার্নিভ্যাল ২০১৭’ এর আয়োজন করেছে বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড, আর এই কার্নিভ্যালের মূল সমন্বয়কারী হিসেবে রয়েছে অরেঞ্জ ৩৬০ লিমিটেড। ”

তিনি আরও জানান, ”ঢাকাসহ মোট আটটি জেলায় ব্যাপক পরিসরে চলেছে এর প্রচার। আর সাগরকন্যা কুয়াকাটা ইতিমধ্যেই সেজেছে বর্ণিল সাজে। সন্ধ্যা হলেই অনবদ্য আলোকসজ্জায় সজ্জিত হয়ে উঠবে সৈকতসহ পুরো কুয়াকাটা। গত কয়েকদিন ধরে কুয়াকাটাজুড়ে বাজছে এই কার্নিভ্যালের অফিসিয়াল থিম সং। বিপিএল থিম সং-খ্যাত কম্পোজার তাসনুভ নাওয়াল রহমানের কম্পোজিশনে এই চমৎকার থিম সংটি এখন মানুষের মুখে মুখে। ”

অনুষ্ঠানটির অন্যতম আকর্ষণ এর অসাধারণ অফিসিয়াল থিম সং। বিপিএল থিম সং এর মূল কম্পোজার তাসনুভ এর কম্পোজিশনে এবার এই থিম সংটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন ঐশী, রোকন ইমন এবং কম্পোজার তাসনুভ নিজে। থিম সংটির চমৎকার কথা লিখেছেন তানজিব সৌরভ।
(আগ্রহীদের জন্য থিম সংটির লিংক নিচে দেওয়া হয়েছে। )

বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড ও অরেঞ্জ ৩৬০ লিমিটেড এর সমন্বিত উদ্যোগে অনুষ্ঠিতব্য ৬০ ঘণ্টার এই মেগা প্রোগ্রামের সূচি নিচে দেওয়া হলো :

প্রথম দিন
সকাল ১০টা : কুয়াকাটা মেগা বিচ কার্নিভ্যাল ২০১৭ এর উদ্বোধন করবেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অর্থ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী জনাব আবুল মাল আবদুল মুহিত।
সকাল ১০টা-১১টা : সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
বিকাল ৪টা-৫টা : সংগীত পরিবেশন, শিল্পী আবিদ ও চুমকী।
বিকাল ৫টা-সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা : বাংলাদেশ হোটেল-মোটেল অ্যাসোসিয়েশন (কুয়াকাটা) এর আয়োজনে স্থানীয় শিল্পীদের পরিবশেনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা-রাত ৮টা : লেজার শো ও দলীয় নৃত্য।
রাত ৮টা-সাড়ে ৯টা : সংগীত পরিবেশন, চিরকুট।

দ্বিতীয় দিন
সকাল : ঘুড়ি উৎসব ও ১০০ ফানুস ওড়ানো।
বিকাল ৪টা-৫টা : সংগীত পরিবেশন, শিল্পী ফকির আলমগীর।
বিকাল ৫টা-সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা : বাংলাদেশ হোটেল-মোটেল অ্যাসোসিয়েশন (কুয়াকাটা) এর আয়োজনে স্থানীয় শিল্পীদের পরিবশেনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা-রাত ৮টা : লেজার শো ও দলীয় নৃত্য।
রাত ৮টা-সাড়ে ৯টা : সংগীত পরিবেশন, সজল ও ডলি সায়ন্তনী।

তৃতীয় দিন
বিকাল ৪টা-৫টা : সংগীত পরিবেশন, জাহিদ ও ডোরা।
সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা-রাত ৮টা : দলীয় নৃত্য।
রাত ৮টা-সাড়ে ৯টা : সংগীত পরিবেশন, এলআরবি।
রাত ১০টা : ১০০ ফানুষ উড়িয়ে এই কার্নিভ্যালের সমাপ্তি ঘোষণা করবেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের শিল্প মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী জনাব আমির হোসেন আমু।

কুয়াকাটা মেগা বিচ কার্নিভ্যাল থিম সং 

 

LEAVE A REPLY