হয়তো অজান্তেই কেউ দ্বন্দ্ব চাইছে, ছবিগুলো সরিয়ে ফেলবো : অভিনেত্রী সানাই

136

‘ফেসবুক লাইভে আসার পর ছবিগুলো সরিয়ে ফেলবো। আজ শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টায় লাইভে আসবো। তখনই না হয় সব সমালোচনার জবাব দেব।’ এভাবেই নিজের অভিব্যক্তি জানালেন উঠতি অভিনেত্রী সানাই। গতকাল থেকে ফেসবুকে নানা আলোচনা ও সমালোচনায় জর্জরিত হচ্ছেন সানাই। এককথায় বলতে গেলে অন্তর্জাল দুনিয়ায় কেমন যেন সানাই বাজছে। মূলত ফেসবুকে এ অভিনেত্রীর পোস্ট করা কয়েকটি উষ্ণ ছবি এবং এগুলোকে ঘিরে একটি আইনি নোটিশের পরপরই বেগবান হচ্ছে সানাইয়ের ‘বাদ্য-বাজনা’।

ছবিগুলো ‘অশালীন’ এমনটা জানিয়ে সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্টের ডি. এইচ দিপু নামের এক আইনজীবী সানাইয়ের বাসার ঠিকানায় আইনি নোটিশটি পাঠান। এরপর সেই নোটিশটি সানাই আবার নিজের ওয়ালে পোস্ট করেন। মূলত তখন থেকেই বেগবান হচ্ছে নানা ধরনের গুঞ্জন। কেউ কেউ বলছেন এগুলো হচ্ছে সানাইয়ের স্ট্যান্টবাজি অথবা নিজেই ফোকাস হতে চাচ্ছেন। এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ প্রতিদিনকে সানাই বলেন, আমি খুবই ইমোশনাল, জেদ অনেক বেশি। মানুষ বলছে আমি স্ট্যান্টবাজি করছি। কিন্তু সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী কি আমার কথায় উঠবস করছে? তার সাথে আমার কোনো কথা হয়নি। পরিচিত কেউ এটা করছে যাতে ছবি থেকে আমাকে বাদ দেয়া হয়। অল্প সময়ে আমি ছয়টা ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছি। মনে হচ্ছে এটাই মূল কারণ। খেয়ে দেয়ে কাজ নেই একজন আইনজীবী আমাকে নোটিশ পাঠাবে। এটা খুবই অবাঞ্চিত ব্যাপার।

মাত্র মিডিয়ায় প্রবেশ করলেন, অনেকে ভালোভাবে চিনেও না, তা আপনার কেন ক্ষতি করতে যাবে এমনটা জানতে চাইলে সানাই বলেন, আমি জানি না। ব্যক্তিগতভাবে কারো সাথে কোনো ধরেনের দ্বন্দ্ব নাই। দ্বন্দ্বে যাওয়ার মতো যোগ্যতা এখনো হয়নি আমার। বলতে গেলে সবে মায়ের পেটেই আছি। তবে অনেকেই আছেন বলেন, ‘৪/৫ বছর ধরে কাজ করছি একটা সিনেমা রিলিজ হয়নি। তুমি কী করবা আমরা দেখে নিব?’ কারও যদি আমার সাথে দ্বন্দ্ব আছে কী না জানি না। হয়তো অজান্তেই কেউ দ্বন্দ্ব চাইছে।

নোটিশের কোনো জবাব দেবেন কী না, এবার তিনি বলেন, এরইমধ্যে এক আইনজীবীর সঙ্গে কথা বলেছি। তিনি এগুলো দেখবেন।

যে ছবিগুলো ঘিরে এত সমস্যা সেগুলো ফেসবুকে রাখবেন না বলে জানালেন সানাই। তিনি বলেন, আমি আজ রাত সাড়ে ১০টায় ফেসবুক লাইভে আসছি, লাইভে আসার পর ছবিগুলো ডিলিট করবো। তখনই সব কিছু প্রশ্নের উত্তর দেব।

উল্লেখ্য, গত বছরের শেষের দিকে বেশ কয়েকটি ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হন সানাই। কিন্তু শ্যুটিংয়ের মুখ দেখেনি অধিকাংশ ছবির ইউনিট।

সুত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন

LEAVE A REPLY