পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটা সৈকত রক্ষা বাঁধ নির্মানে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ

15

শহিদুল আলম,পটুয়াখালী, ২৪-০৭-২০১৯

সমুদ্রের অব্যাহত ভাঙ্গন থেকে কুয়াকাটা সৈকত রক্ষায় পাউবো’র অর্থায়নে জিও ব্যাগ দিয়ে সুরক্ষা বাঁধ নির্মাণে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। জিও টিউব ও ব্যাগে ২শ’ নম্বর সিপি বালু ভরে সৈকত রক্ষা বাঁধ দেওয়ার নিয়ম থাকলেও সেখানে দেয়া হচ্ছে সৈকতের বালু।

এমন অনিয়ম জনসম্মূখে হলেও পাউবো কর্মকর্তা ও নির্মানকারী প্রতিষ্ঠান বরাবরই এসব অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে। কাজের মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ায় তরিঘড়ি করে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটি দিনে ও রাতের আধাঁরে সমুদ্রের বালু দিয়ে সুরক্ষা বাঁেধর কাজ চালিয়ে আসলেও পাউবো কর্মকর্তাদের ভূমিকা রহস্যজনক বলছেন স্থানীয়রা।

এছাড়া সৈকত সুরক্ষার পাশাপাশি মেরিন ড্রাইভ রাস্তা নির্মাণের কথা থাকলেও যেন-তেন ভাবে কাজ করছে। অগোছালো ভাবে জিও টিউব বসানোর কারনে সৈকতের সৌন্দর্য নষ্ট হচ্ছে।

পাউবো কলাপাড়া নির্বাহী প্রকৌশলী’র অফিস সূত্রে জানা যায়, কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকত ভাঙ্গনরোধে ১ কোটি ৯০ লাখ টাকা ব্যয়ে ১৫শ’৬০ মিটার দৈর্ঘ্য সুরক্ষা বাঁধ নির্মাণের জন্য ১৫ এপ্রিল কার্যাদেশ দেওয়া হয় বি.জে. জিও টেক্সটাইল লিমিটেডকে। যা চলতি বছরের ৩০ জুন শেষ হবার কথা ছিল। সৈকতের জিরো পয়েন্ট এলাকার পিকনিক স্পট থেকে শুরু করে কুয়াকাটা দাখিল মাদ্রাসা পর্যন্ত দেড় কিলোমিটার জিও বাগে এ সুরক্ষা বাঁধ তৈরীর কাজ চলছে। এটি ৫৬টি জিও টিউব ও ৮হাজার পিচ জিও বস্তা দিয়ে নির্মান করা হবে। প্রতিটি জিও টিউবের দৈর্ঘ্য হবে ৩০ মিটার এবং প্রস্থ হবে ৪ মিটার। প্রতিটি জিও বস্তার সাইজ হবে পিপি সাইজ। প্রতিটি জিও টিউবের রিভার সাইডে দুটি করে জিও বস্তা ২.৭৪ মিটার প্রস্থ এবং কান্ট্রি সাইডে দুটি করে জিও বস্তা ২.৭৪ মিটার উচু ব্যাগ দিয়ে এ সুরক্ষা বাঁধ বাধ নির্মান করতে হবে এমন নির্দেশনা রয়েছে দরপত্র কোটেশনে।

স্থানীয়রা জানান, ওই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কাজ শুরু করা থেকে এ পর্যন্ত ৫৬ টি জিও টিউবের অর্ধেক জিও টিউবও তৈরী করতে পারেনি। যেসব টিউব তৈরী করা হয়েছে বালু বের হয়ে যাওয়ার কারনে অধিকাংশ টিউবই নাজুক হয়ে গেছে। ৮ হাজার জিও ব্যাগের মধ্যে অর্ধেকের বেশি জিও বস্তা তৈরী করলেও লোকাল বালু ভরার কারনে বস্তা থেকে বালু বের হয়ে গেছে এমনটাই দেখা গেছে ।

কুয়াকাটা পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা জাহাঙ্গীর চৌকিদারের অভিযোগ, দিনে ও রাতের আধাঁরে সৈকতের বালু দিয়ে জিও টিউব এবং জিও ব্যাগ ভরা হচ্ছে। তারা এ বিষয়ে প্রতিবাদ করলে পাউবো কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে এ বালু ভরা হচ্ছে বলে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের লোকজন তাদের জানিয়েছেন।

ট্যুরিজম ব্যবসায়ী ও সংগীত শিল্পী জনি আলমগীর বলেন. সৌন্দর্য বিহীন এমন সুরক্ষা বাধে তিনি অশাহত হয়েছেন। পর্যটক ও স্থানীয়রা এমন সুরক্ষাবাধ আশা করেনি।

কুয়াকাটা পৌরসভার কাউন্সিলর তোফায়েল আহম্মেদ তপু বলেন, এ পর্যন্ত যে কাজ করেছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান তাতে ৫০ ভাগ কাজ সম্পন্ন করতে পারেনি। অথচ নির্ধারিত সময় পেরিয়ে অতিরিক্ত আরো প্রায় ১মাস শেষ হতে চলেছে।

কুয়াকাটা পৌর সভার ৩নং কুয়াকাটা পৌরসভার প্যানেল মেয়র মোঃ শাহ আলম হাওলাদার বলেন, বেড়িবাঁধের সাথে গর্ত করে মোটা বালুর পরিবর্তে জিও টিউবে লোকাল বালু ভরা হচ্ছে স্থানীয়দের এমন অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় দুই দফায় কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়। এমন অনিয়মের বিষয় পাউবো কলাপাড়া প্রকৌশলী এবং ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে জানালে সঠিক ভাবে কাজ হচ্ছে বলে তাকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেন তারা।

এ বিষয়ে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান বি.জে. জিও টেক্সটাইল লিমিটেড কোম্পানীর প্রকল্প ইঞ্জিনিয়ার আবদুল্লাহ সাংবাদিকদের জানান, তার প্রতিষ্ঠান দুবলার চরের পাশাপাশি দেশের একাধিক ভাঙ্গনকবলিত এলাকায় কাজ করছেন। এ কাজ করার মত দক্ষ দেশের অন্য কোন প্রতিষ্ঠান নেই। মোটা বালুর পরিবর্তে সমুদ্রের বালু দেয়া হচ্ছে এমন অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন বালুর ট্রাক আসতে দেরী হলে এমন হচ্ছে হয়তো।

পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)’র কলাপাড়া সার্কেলের উপ-সহকারি প্রকৌশলী সৈয়দ তারিকুল রহমান লোকাল বালু দিয়ে কাজ করা হচ্ছে এমন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, জিও টিউবে পাইপ দিয়ে বালু ভরার সময় গর্ত থেকে ৩০ ভাগ লোকাল বালু গেলেও তা পানির সাথে নেমে যাচ্ছে। তিনি আরো বলেন নির্ধারিত সময়ে বর্ষার আগে এ কাজ সম্পন্ন করার বিষয়ে প্রতিনিয়ত তদারকিসহ তাগিদ দেয়া হচ্ছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে।

LEAVE A REPLY